Advertisement

দীর্ঘ দিনের আইনি লড়াইয়ের পর রসগোল্লার অধিকার পেল বাংলা

author image
1:08 pm 14 Nov, 2017

Advertisement
দীর্ঘ দিনের রসগোল্লার আইনি লড়াইয়ে জয় হলো বাংলার। 2015 সালে রসগোল্লার অধিকার নিয়ে লড়াই গড়ায় জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেশন রেজিস্ট্রেশনের দফতরে। কারণ ওড়িশার দাবি ছিল রসগোল্লরা জনক তারা। কিন্তু ওড়িশাকে হারিয়ে রসগোল্লার জিআই রেজিস্ট্রেশন পেল পশ্চিমবঙ্গ।
বেশ কয়েকদিন আগে রসগোল্লার নিয়ে দ্বন্ধের সূত্রপাত হয়েছিল। ওড়িশা সরকার যাকে রসগোল্লা বলে দাবি করেছে, তার স্হানীয় নাম ক্ষীরমোহন। উপকরণ সুজি, ক্ষীর ও গুড়৷ মূলত পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে ভোগ হিসাবে দেওয়া হয়ে থাকে। অন্যদিকে বাংলার রসগোল্লা মূল উপাদান ছানা ও চিনির রস।
2015 সালের পর থেকে দফায় দফায় জিআই-এর আধিকারিকদের সাথে বৈঠক হয়। ওড়িশা এবং পশ্চিমবঙ্গের আধিকারিকদের রাজ্য সরকারের কাছে তাঁরা রসগোল্লার রসের ‘ভিসকোসিটি’ বা ঘনত্ব ও তার ‘রেঞ্জ’ বা কতদূর পর্যন্ত সেই ঘনত্বের বিস্তৃতি– এই সমস্ত তথ্য জানতে চান৷ পরে রাজ্যের পক্ষ থেকে সেই রিপোর্টও পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এরপরেও একের পর এক স্বপক্ষে যুক্তি দেওয়া হয়।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রসগোল্লার অধিকার নিয়ে সরব হয়েছিলেন। অন্যদিকে রসগোল্লার অধিকার পাওয়া নিয়ে লড়াইয়ে ওড়িশা সরকার জড়িয়ে পড়েছিল। এই সরকারি স্বীকৃতি পাওয়ার পরই এখন থেকে রসগোল্লাকে ‘বাংলার রসগোল্লা’ বলার অধিকারও মিলল।

Advertisement
Advertisement


  • Advertisement