Advertisement

…এইভাবে পাকিস্তানের এই গ্রামটি ভারতের অন্তর্ভুক্ত হয়

author image
12:44 pm 3 Aug, 2017

Advertisement

1947 সালে ভারত স্বাধীন হওয়ার সাথে দুটি সীমান্তের সাথে বিভক্ত হয়ে গিয়েছিল মানুষও। স্বাধীনতার কয়েক বছর পর 1971 সালে ঠিক এই রকমই হয়েছিল। 1971 সালের ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধের পর নতুন দেশ বাংলাদেশের উদ্ভব হয়েছিল। তার ফলে ভারতের অংশে এমন একটি গ্রাম আসে যেটা কোনও একসময়ে পাকিস্তানের অংশ ছিল।

এই গ্রামটি ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরের নিকটে অবস্হিত ছিল। বিভাজনের সময় জম্মু ও কাশ্মীরের বালতিস্তান অঞ্চলের তুরতুক গ্রাম পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। সীমান্তের কাছে অবস্হিত হওয়া এই গ্রামে বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ। সেই কারণে এই গ্রামটি কিছুটা উভয় দেশের থেকে বিচ্ছিন্ন। একসময়ে সিল্ক রোডের সাথে যুক্ত থাকায় এই গ্রাম থেকে চিন, রোম ও পারস্য পর্যন্ত বাণিজ্য হতো।

লাদাখের কাছে অবস্হিত হওয়ায় এই গ্রামে মুসলিম জনসংখ্যা বেশি হওয়া সত্ত্বেও বৌদ্ধধর্মের প্রভাবও দেখা যায়।


Advertisement

এই গ্রামটিকে ভারতের অংশ করার কৃতিত্ব দেওয়া হয় কর্নেল রিনচেনকে, তিনি এই গ্রামে নিকটেই থাকতেন। 1971 সালে তিনি এখানে আসেন এবং তিনি তুরতুক গ্রামবাসীদের বোঝান ভারতের অংশ হলে তারা বেশি নিরাপদে থাকবেন। কর্নেলের বোঝানোর পর গ্রামবাসীরা ভারতের অংশ হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এবং বিভাজনের সময় তারা তুরতুক গ্রামের মসজিদে আশ্রয় নেন।

তুরতুক গ্রাম ভারতের অংশ হয়েতো গেছে কিন্তু এর অবস্হা দেশের অন্যান্য গ্রামের মতোই খারাপ। ডিজিটাল যুগেও এই গ্রামের লোকদের কাছে ফোন এবং ইন্টারনেটের মতো ব্যবস্হা নেই।

গ্রামটি লাদাখের কাছে অবস্হতি হওয়া এখন গ্রামে বহু পর্যটক আসে। গ্রামের সৌন্দর্য এবং শান্ত পরিবেশের জন্য পর্যটকদের কাছে এই স্হানটি বেশ জনপ্রিয়।

Advertisement


  • Advertisement