বিদ্যুৎ শক থেকে ক্ষুধা মেটান নরেশ কুমার

author image
5:31 pm 26 Aug, 2017

উত্তরপ্রদেশের এক বাসিন্দার দাবি তিনি বৈদ্যুতিক শক খেয়ে নিজের পেট ভরেন। মুজফ্ফরনগরের নরেশ কুমার জানিয়েছেন, তার শরীরে বিদ্যুতের শকের কোনও প্রভাব পড়ে না। যখনই তার খিদে পায় তখনই তিনি বিদ্যুতের শক নিয়ে নেন এবং তার ক্ষুধা মিটে যায়। সামগ্রিক ভাবে তিনি এর মাধ্যমে শক্তি পান।

অবাক করার বিষয়টি হলো নরেশের শরীরের ওপর বিদ্যুতের কোনও ভোল্টেজের প্রভাব পড়ে না।

42 বছরের নরেশ কুমার তার এই অদ্ভুত ক্ষমতার সম্পর্কে তখনই জানতে পারেন যখন তিনি হাই ভোল্টেজের একটি তারকে স্পর্শ করেন। কিন্তু তিনি বেঁচে আসেন। এখন নরেশ 440 ভোল্টের বিদ্যুতের তারকে খালি পায়ে জুড়ে দেন।

বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম যেমন ফ্রিজ, টিভি, ওয়াশিং মেশিনের মতো কোনও জিনিস স্পর্শ করলে তিনি কোনও শক খান না। নরেশ তার জোড়ার আগে সুইচ অফ করেন না। বরং সুইচ অন করার সাথে তিনি সমস্ত কাজ নিমিষে করে ফেলেন।

নরেশ কুমার বলেছেন:

“যখনই আমার খিদে পায় বাড়িতে খাবার না থাকলে আমি শক খেয়ে নি। প্রায় আধ ঘন্টা এইরকম করলে আমার খিদে মিটে যায়। তাছাড়া শক্তিও বেড়ে যায়। আমার মনে হয় আমার শরীরের অর্ধেক অংশ এখন বৈদ্যুতিক শকে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে। সবার পক্ষে এই রকম করা সম্ভব নয়। তবে আমার স্ত্রী এটার দ্বারা প্রভাবিত না হলেও অন্যরা প্রভাবিত।”

বিদ্যুত স্পর্শ করা মাত্রই নরেশের শরীরের যে কোনও অংশে টেস্টার লাগিয়ে টেস্টারের লাইটকে জ্বলতে দেখবেন।