Advertisement

সৌদি আরবের মধ্যে রয়েছে একটি ক্ষুদ্র-আমেরিকা, জীবনধারা সম্পূর্ণ আলাদা

author image
12:53 pm 16 Aug, 2017

Advertisement

এই শহরটি সৌদি আরবের অংশ। কিন্তু অন্যান্য শহরের থেকে আলাদা এই শহরটি। এখানে মহিলারা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী জামাকাপড় পড়তে পারেন, গাড়ি চালাতে পারেন। সৌদি আরাম্কোতে আপনাকে স্বাগত। এই শহরটি বিশেষত আমেরিকার জন্য তৈরি করা হয়েছে। সেই কারণে এখানের নিয়ম আমেরিকার মতোই।

পাকিস্তানের আয়েশা মালিকের জন্ম আরাম্কোতে। বর্তমানে তাঁর কাছে আমেরিকান পাসপোর্ট রয়েছে। পেশায় ফটোগ্রাফার আয়েশা আরাম্কো শহরের ফটো সমেত একটি বই প্রকাশ করেছে। শিরোনাম হলো আরাম্কো : অফ দ্য অয়েল ফীল্ডস।


Advertisement

সৌদি আরাম্কো একটি গ্রেটেড সম্প্রদায়। এটা 58 বর্গ কিমি জুড়ে বিস্তৃত। এখানে রয়েছে সমুদ্র সৈকত। যেখানে শুধুমাত্র আরাম্কোর বাসিন্দা এবং তাদের অতিথিরা যেতে পারেন। এখানকার লাইফস্টাইল আমেরিকার মতোই। 1930 সালে এই শহরটি আমেরিকানদের জন্য তৈরি করা হয়েছিল। দহরান এটারই একটি অংশ।

যখন সৌদি আরবে তেলের অনুসন্ধান পাওয়া যায়, সেটা বার করার দায়িত্ব ছিল স্ট্যান্ডার্ড অয়েল অফ ক্যালিফোর্নিয়া নামের আমেরিকান কোম্পানির ওপর। তাদের ইঞ্জিনিয়ার এবং কর্মচারী আমেরিকান ছিলেন। তাদের জীবনধারা সৌদি আরবের বিপরীত ছিল। সেই সমস্ত কর্মচারীদের জন্য কোম্পানী এবং সৌদি সরকারের সহযোগিতায় এই শহরটি তৈরি করা হয়।

প্রথমে এর সঞ্চালন করতো আমেরিকান কোম্পানী, কিন্তু পরে সৌদি সরকার এর দায়িস্ত নেয়। স্ট্যান্ডার্ড অয়েল অফ আমেরিকা 1980 সালে নাম পরিবর্তন করে সৌদি আরবিয়ান অয়েল কোম্পানী করে। এই কোম্পানীতে কর্মরত আমেরিকানদের সাথে সৌদি আরবিয়ান এবং অন্য দেশের কর্মীও রয়েছেন। সেজন্য এখানে মিশ্র সংস্কৃতির প্রতিফলন দেখা যায়। এখানের বাসিন্দাদের জন্য গলফ কোর্ট, জিম, হাসপাতাল, আমেরিকান স্কুলের মতো সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

Advertisement


  • Advertisement