Advertisement

দেশকে সমৃদ্ধ করে নিজে গরীব হয়ে রইলেন বিশ্বের দরিদ্রতম রাষ্ট্রপতি

author image
12:35 pm 18 Jul, 2017

Advertisement

দক্ষিণ আমেরিকান দেশ উরুগুয়ের কথা যখন আসে তখনই সেখানকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জোসে মুজিকার নাম প্রথমে উল্লেখ করা হয়। মুজিকা হলেন এমন একজন নেতা যাকে বিশ্বের দরিদ্রতম নেতা বলা হয়। মার্চ 2015 সালে তিনি প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। তিনি বলেছিলেন, তাঁর প্রেসিডেন্ট পদ ছাড়ার কারণ হলো তিনি তিন পায়ের ম্যানুয়াল এবং চার পায়ের বন্ধু বিটলের সাথে সময় কাটাতে চান ম্যানুয়াল হলো তাঁর পোষা কুকুর এবং বিটল হলো তাঁর গাড়ি।

উরুগুয়ের প্রেসিডেন্ট মুজিকা হলেন বিশ্বের দরিদ্রতম রাষ্ট্রপতি। রাষ্ট্রপতি ভবনের পরিবর্তে তিনি তার দু রুমের বাড়িতে থাকতেন। নিরাপত্তার জন্য ছিল মাত্র দুটি পুলিশ। তিনি সাধারণ লোকের মতই নিজে জল ভরেন এবং নিজের জামাকাপড় নিজেই পরিষ্কার করেন। অতিরিক্ত আয়ের জন্য তিনি তাঁর স্ত্রীর সাথে ফুলের চাষ করেন।


Advertisement

চাষ করার জন্য ট্রাক্টর নিজেই চালান। ট্রাক্টর খারাপ হয়ে গেলে নিজেই ঠিক করেন নেন। ম্যাকানিকের প্রয়োজন পড়ে না। তিনি তাঁর ভক্সওয়াগেন বিটলকে নিজেই ড্রাইভ করে অফিসে যেতেন। অফিসে যাওয়ার সময় তিনি কোট-প্যান্ট পড়েন কিন্তু বাড়িতে থাকাকালীন সাধারণ কাপড় পড়েন।

একটি দেশের রাষ্ট্রপতিকে যে সমস্ত সুবিধা দেওয়া উচিত সেই সমস্তই মুজিকাকে দেওয়া হয়েছিল কিন্তু তিনি সেগুলি নিতে অস্বীকার করেন। তাঁর বেতন হলো 13300 ডলার। যার মধ্যে 12000 ডলার গরীবদের দান করে দেন। বাকি 1300 ডলারের মধ্যে 775 ডলার ছোট ব্যবসায়ীদের দিয়ে দেন।

আপনি যদি মনে করেন উরুগুয়ে একটি দরিদ্র দেশ সেই কারণে সেখানকার রাষ্ট্রপতিও গরীব তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। উরুগুয়েতে প্রতি মাসে প্রতি ব্যক্তির আয় 50,000 টাকা।

Advertisement


  • Advertisement