মেট্রোতে বসে এক ব্যক্তি একটি মেয়ের ভিডিও করছিল, এরপর মেয়েটি যা করলো তা অপ্রত্যাশিত!

author image
Updated on 5 Sep, 2017 at 4:33 pm

আজকে আপনাদের কাছে একটি প্রশ্ন রাখা হলো আপনি কি বলতে পারবেন মহিলারা কোথায় সুরক্ষিত। কিন্তু আপনি এই প্রশ্নের জবাব দিতে পারবে না। যে সমাজে নারী পুরুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলছে তখন সেই সমাজে নারী সুরক্ষিত নয়।

আজ আমরা আপনাদের সিঙ্গাপুরের একটি ঘটনার কথা বলতে যাচ্ছি যেখানে একজন লোক নির্লজ্জভাবে একটি মেয়ের ভিডিও করছিলেন।

সিঙ্গাপুর বসবাসকারী উমা মহেশ্বরীর ভিডিও যে লোকটি করছিল তাকে তিনি হাতেনাতে ধরেন। উমা তার ফেসবুক ওয়ালে সেই লোকটির ফটো ও ভিডিও শেয়ার করেছে। সোশ্যাল মিডিয়া এই পোস্ট ভাইরাল হচ্ছে। পাশাপাশি 30 লক্ষেরও বেশি মানুষ এই ভিডিও দেখেছেন।

 



উমা তার পোস্টে লিখেছেন, এই ঘটনাটি 13 মে-র সন্ধ্যাবেলার। যখন আমি আউট্রম থেকে হারবার ফ্রন্টে আমার বন্ধুর সাথে দেখা করতে যাচ্ছিলাম। তখনই এক ব্যক্তি আমার সামনের সিটে এসে বসে। এরপর আমি দেখলাম ব্যক্তিটি তার ফোন বের করে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি উচ্চতায় ধরে রয়েছে। তখন আমার সন্দেহ হয়। সেই সময় আমি ব্যক্তিটির পেছনে থাকা আয়নায় ভালো করে দেখলাম। ভালো করে দেখার পর বুঝতে পারি ব্যক্তিটি আমার ভিডিও করছে।

লোকটির ঐ ব্যবহারের প্রমাণ রাখার জন্য আমিও আমার ফোন দিয়ে তার ভিডিও তুলতে শুরু করি। এরপর আমি MRT Administration-এ এই বিষয়টি জানাই। কয়েক মিনিটের মধ্যে সিঙ্গাপুর পুলিশ ও এমআরটি মেট্রো স্টেশনের অফিসার আমার সাহায্য করেন। যখন ঐ লোকটি ধরা পড়ে তখন সে ক্ষমা চাইতে শুরু করে। ক্ষমা চাওয়ার সময় সে আমাকে তার বোন বানিয়ে নেয়।

রিপোর্ট অনুযায়ী, পুলিশ জানিয়েছে পুলিশের কাছে সাহায্যের জন্য ফোন আসে পুলিশ মামলার তদন্ত শুরু করেছে উমা মহেশ্বরী বলেছেন তার মনে হয় সেই ব্যক্তির মোবাইলে এই ধরনের আরও অনেক ভিডিও থাকতে পারে যদি উমার অভিযোগ সত্য বলে প্রমাণিত হয় তাহলে সিঙ্গাপুর আইন অনুযায়ী সেই ব্যক্তির এক বছর পর্যন্ত জেল হবে