সুখী বিবাহিত জীবনের জন্য এই 11 উপায় করুন

author image
12:10 pm 1 Nov, 2017

Advertisement

বিয়ের পর প্রথম কয়েক মাস দম্পতিদের মধ্যে ভালবাসা থাকে। কিন্তু কয়েক বছর পর ভালোবাসার মধুরতা কমে যায়। দায়িত্ব ও এক অপরের প্রতি প্রত্যাশা এতটাই বেড়ে যায় যে সম্পর্কের মধ্যে এতটা দূরত্ব চলে আসে, তারা বুঝতে পারেনা যে তাদের সম্পর্কে কিভাবে রোমান্টিক রাখা যায়। তবে এটা এতটাও কঠিন নয়। তার জন্য আপনাকে কয়েকটি জিনিস লক্ষ্য রাখতে হবে যেটা আপনার সম্পর্ককে দীর্ঘস্থায়ী করবে।

1. একে অপরের প্রশংসা করতে ভুলবেন না

এটা হতে পারে অনেকবার আপনি অন্যদের সামনে আপনার সঙ্গীর প্রশংসা করতে দ্বিধা করেন, কিন্তু মনে রাখবেন যে সবাই তার প্রশংসা শুনতে ভালোবাসে। এই পোষাকে তোমাকে খুব সুন্দর দেখাচ্ছে এবং আজকের রান্না ভালো হয়েছে এধরনের ছোট ছোট প্রশংসা আপনার সঙ্গীকে আনন্দিত করবে। নিজেকে বিশেষ বোধ করবে এবং একে আপনার কাছাকাছি আসবেন। প্রায়ই বিয়ের কিছু সময় পরে, দম্পতি এই ধরনের বিষয়কে মূল্য দেয় না, যা ভুল।

2. উপহারও গুরুত্বপূর্ণ


Advertisement

উপহার কে পছন্দ করে না। উপহার দেওয়ার জন্য বিশেষ উপলক্ষের প্রয়োজন নেই। সঙ্গীকে খুশি করার জন্য যে কোনও সময় তাকে উপহার দিতে পারেন। বিশ্বাস করুন তিনি এই জিনিসটা ভালোবাসবেন এবং আপনার মধ্যে ভালবাসা বাড়বে।

3. পার্টনারের সাথে ডেটে যান

আপনি হয়ত ভাবছেন নিজের স্ত্রীর সাথে ডেটে যাওয়ার প্রয়োজন কেন রয়েছে। কিন্তু যদি আপনি আপনার সম্পর্ক রোমান্টিক রাখতে চান তাহলে, আপনার স্ত্রী সঙ্গে একটি সিনেমা বা ডিনার ডেটে যান। তাদের সাথে কাঁটানো সময আপনার বিরক্তিকর সম্পর্ককে রিফ্রেশ করবে।

4. যৌন সম্পর্কের দিকে নজর দিন

সফল বিবাহিত জীবনের জন্য সঙ্গীর সাথে যৌন সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ। হঠাত্ চুমু দিয়ে বা গলায় জড়িয়ে তাকে স্পেশাল অনুভব করান।

5. রোমান্টিক সারপ্রাইজ দিন

যদি আপনার পার্টনারের আপনার প্রতি অভিযোগ থাকে যে আপনার কাছে তার জন্য সময় নেই, তাহলে কিছু রোমান্টিক সারপ্রাইজ দিন। যেমন তার জন্য পছন্দের রান্না করুন, পরিবারের সাথে দেখা করতে যান, তাদের পছন্দসই কিছু কাজ করুন, যাতে তারা সুখী হয়, ইত্যাদি।

6. সঙ্গীকে উৎসাহ দিন

যে সমস্ত দম্পতি একে অপরের ছোট ছোট প্রচেষ্টার প্রশংসা করেন তারা অন্যদের থেকে বেশি খুশি হন। কখনও সঙ্গীর ছোট কাজগুলিকে অবহেলা করবেন না। এর ফলে সম্পর্কের মধ্যে ভালবাসা এবং বিশ্বাস বাড়ে।



7. কাজের মাঝখানে ফোন বা ম্যাসেজ করতে ভুলবেন না

আপনি আফিসের কাজে অনেক ব্যস্ত রয়েছেন। কিন্তু কয়েক মিনিটের জন্য সময় বের করে নিজের সঙ্গীকে ফোন করতে বা বার্তা পাঠাতে ভুলবেন না।

8. বিশ্বাস

স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক বিশ্বাসের ওপর টিকে থাকে। অতএব, দম্পতির কথায় কথায় একে অপরের উপর আঙুল তোলা উচিত নয়। অফিস থেকে দেরী করে আসার পর স্বামী সামনে প্রশ্ন করবেন না। অনুরূপভাবে, যদি স্ত্রী বন্ধুদের সাথে ঘুরে বাড়িতে ফেরেন তাহলে তাকে সন্দেহ করবেন না। দেরী হওয়ার কারণ জানার চেষ্টা করুন।

9. সঙ্গীর অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করুন

নিজের সঙ্গীকে ভালোভাবে বুঝে নিলে আপনার সম্পর্কের অনেক সমস্যার সমাধান হবে। অন্যান্য জিনিসের ওপর নজর দেওয়ার আগে সঙ্গীর প্রকৃতি এবং অনুভূতি বোঝার চেষ্টা করুন।

10. পার্সলান স্পেস খুব জরুরী

স্বামী এবং স্ত্রী একে অপরের সাথে সংযুক্ত, যদিও তাদের নিজস্ব স্বতন্ত্র পরিচয় এবং ইচ্ছা রয়েছে। অতএব, দম্পতি একে অপরকে পার্সলান স্পেস দিতে হবে। জরুরী নয় যে স্বামী এবং স্ত্রী সবসময় একে অপরের সাথে সময় কাটাবেন। কখনও তারা বন্ধু এবং পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে পারেন।

11. একে অপরের সম্মান

সবসময় একে অপরের সম্মান করা উচিত। স্বামী যদি সর্বদাই স্ত্রীকে অপমান করে তবে তা স্পষ্ট যে স্বামী তার স্ত্রীকে সম্মান করে না তাদের উভয়েরই একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত এবং যদি আপনি এটি না করেন তবে আপনার সাথে থাকার কোনও ইঙ্গিত নেই।


Advertisement

যদি আপনার সম্পর্ক রোমান্টিক করতে চান তাহলে এই বিষয়গুলি প্রয়োগ করে দেখুন।


  • Advertisement