Advertisement

জানুন কেন জন্মাষ্টমীর দিন ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে 56 ভোগ দেওয়া হয় ?

author image
11:41 am 15 Aug, 2017

Advertisement

আজ সারাদেশে পালন করা হচ্ছে জন্মাষ্টমী। জন্মাষ্টমীর সুপ্রসন্ন হলো রাত 12 টা। এই মুহূর্ত বিশেষ হওয়ার কারণ হলো কারণ এই সময় কৃষ্ণ, কালী এবং বিন্ধ্যবাসিনী দেবীর জন্ম হয়েছিল। পুরাণ অনুযায়ী আজকের দিনটি মহাকালীর প্রকটত্সব। বিষ্ণুপুরাণ অনুযায়ী, আজকের দিনেই বিন্ধ্যবাসিনী দেবী ভাদ্রকৃষ্ণ অষ্টমীর মধ্যরাতে যশোদার ঘরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। সেই কারণে এই সময়কে দুর্লভ সমন্বয় বলে বিবেচনা করা হয়।

ভগবান কৃষ্ণের আরাধনা করলে পাওয়া যাবে সাফল্য।

অনুমান করা হয় জন্মাষ্টমীর দিন ভগবান শ্রীকৃষ্ণ পূজা করলে জীবনে সাফল্যের সাথে অর্থ সংক্রান্ত সমস্যারও সমাধান হয়। রাত্রি 12 টার সময় ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে দুধ, দই, মধু, ঘি এবং গঙ্গাজল দিয়ে স্নান করানোর পর নতুন বস্ত্র পড়ান। এর ফলে খাদ্য, সম্পদ ও সুখের বৃদ্ধি হয়।

এই দিন কৃষ্ণের কাছে 56 ভোগ অর্পণ করা হয় 56 ভোগ অর্পণের পেছনে রয়েছে একটি গল্প।

কাহিনীটি হলো ঠিক এইরকম:


Advertisement

” গোকুলে ইন্দ্রের প্রকপের কারণে হওয়া ভারী বর্ষণের থেকে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য ভগবান শ্রী কৃষ্ণ তাঁর কনিষ্ঠ আঙ্গুলে গোবর্ধন পাহাড়া তুলে নিয়েছিলেন। সমস্ত গ্রামবাসী এই পাহড়ের নিচে আশ্রয় নেয়। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ক্রমাগত সাত দিন পর্যন্ত কনিষ্ঠ আঙ্গুলে গোবর্ধন পাহাড় তুলে রেখেছিলেন। অবশেষে ইন্দ্র নিজের ভুল বুঝতে পারেন এবং বৃষ্টি বন্ধ করেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ প্রতিদিন ভোজনে আটধরনের খাবার খেতেন। কিন্তু সাতদিন পর্যন্ত তিনি অন্ন মুখে দেননি। তাইজন্য সাত দিন পর্যন্ত গ্রামবাসীরা শ্রী কৃষ্ণকে ধন্যবাদ ব্যক্ত করার জন্য 56 ধরনের খাবার রান্না করে আনেন। ”

ঐতিহ্য অনুযায়ী ভগবান শ্রী কৃষ্ণের ভোগ ক্রমানুসারে দেওয়া হয় 56। ভোগের শুরু দুধের সাথে হয় এরপর মাখন-মিছরি, ময়দা-ভিত্তিক মিষ্টি, নোনতা খাদ্য এবং শেষে মিষ্টি বা জিলিপি দেওয়ার নিয়ম রয়েছে।

 

Advertisement


  • Advertisement