চিনের বিশাল প্রাচীর সম্পর্কে 9 টি বিস্ময়কর তথ্য, আপনি হয়তো জানেন না

author image
3:53 pm 25 Jul, 2017

Advertisement



ভারত ও চিনের মধ্যে সীমান্ত নিয়ে তৈরি হয়েছে সমস্যা। চিন সবসময় তার শক্তি দেখিয়ে প্রতিবেশী দেশগুলির ওপর চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে। আজ আমরা আপনাদের বিশ্বের বৃহত্তম প্রাচীর ( ওয়াল অফ্ চায়না ) সংক্রান্ত আকর্ষণীয় এবং বিস্ময়কর তথ্য সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি।

চিনের এই বিশাল প্রাচীর নির্মাণকার্য শুরু হয়েছিল সপ্তম শতাব্দীতে অর্থাত্ 2800 বছর পূর্বে। যা সম্পন্ন করতে প্রায় দু হাজার বছর সময় লেগেছিল। চিনের প্রাচীর কিন সি হুয়াং তৈরি করিয়েছিলেন।

এক সময় এই প্রাচীর বিভিন্ন নামে পরিচিত ছিল। যার মধ্যে রয়েছে রমপন্ত, পারপাল ফ্রন্টিয়ার, অর্থ ড্রাগন ধরনের নাম। তবে ঊনবিংশ শতাব্দীতে গ্রেট ওয়াল অফ্ চায়না নামে পরিচিত হয়।

এই প্রাচীরের কিছু অংশ একে অপরের সাথে যুক্ত নয়। যদি সবকটি অংশ যুক্ত করে দেওয়া যায় তাহলে মোট দৈর্ঘ্য হবে 8848 কিলোমিটার।

একটি অনুমান অনুযায়ী, প্রায় 20 থেকে 30 লক্ষ মানুষ এই প্রাচীর তৈরি করার জন্য নিজের পুরো জীবন উত্সর্গ করেছে।

প্রাচীর এতটাই চওড়া যে সেখানে একসাথে 5 ঘোড়া বা 10 জন একসাথে হাঁটতে পারবে।

শত্রুদের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু বহু শতাব্দী ধরে এর ব্যবহার ব্যবসার জন্য করা হচ্ছে।

প্রাচীর নির্মাণের জন্য যারা তাদের জীবন উতসর্গ করেছিল তাদের প্রাচীরের নিচে সমাধি দেওয়া হয়েছে। তাইজন্য এটাকে বিশ্বের দীর্ঘতম কবরস্থান বলা হয়।

এই প্রাচীর ভেঙে শত্রুরা চিনে হামলা করার চেষ্টা করেছে, যেমন 1211 সালে চেঙ্গিস খান।

শত্রুদের ওপর নজর রাখার জন্য বেশ কিছু পর্যবেক্ষণ টাওয়ারও তৈরি করা হয়েছে।


  • Advertisement