এই জিনিসগুলিকে সমগ্র বিশ্বে সৌভাগ্যের প্রতীক বলে মনে করা হয়, আপনিও জানার পর অবাক হয়ে যাবেন!

author image
1:15 pm 21 Mar, 2018

Advertisement

আপনি জানার অবাক হবেন শুধুমাত্র আমাদের দেশের লোকেরা অন্ধবিশ্বাস করেন না। সারা পৃথিবীতে মানুষ সুখী জীবনের জন্য এমন কাজ করেন যাকে আমরা কুসংস্কার বলি। সৌভাগ্যের এই প্রতীক সমগ্র বিশ্বের একরকম নয়। আসুন আমরা সারা বিশ্বে কিছু বিশেষ সৌভাগ্য প্রতীকের বিষয়ে বলি।

1. কার্প সেল (মত্স্য প্রজাতি) – পোল্যান্ড

অনেক ইউরোপীয় দেশগুলিতে, কার্প ক্রিসমাসের দিনে ডিনারে পরিবেশন করা হয়। এটি ঐতিহ্যগতভাবে প্রয়োজনীয় বলে মনে করা হয়। খাবার শেষ হওয়ার পর কিছু লোক তাদের মানিব্যাগে কার্প রাখেন।

2. কাস্টড ঘোড়া – সুইডেন


Advertisement

এই বিশেষ ঘোড়া সুইডেনের জাতীয় প্রতীক। এই ঘোড়া সুইডেনের ডালারনা এলাকায় পাওয়া যায় এবং এটাকে ক্ষমতা, বিশ্বাস, ভাগ্য এবং খ্যাতি প্রতীক বলে মনে করা হয়। তবে আসল কাস্টড ঘোড়া ডালারনাতে তৈরি হয় , কিন্তু আপনি স্টকহোমের প্রতিটি দোকানে পাবেন।

3. রেড বেট (বাদুড়) – চিন

বিশ্বাস করা হয় যে এই বাদুড় অশুভ শক্তিকে দূরে রাখে। তাই এটাকে সৌভাগ্যের প্রতীক বলে মনে করা হয়। চিনা সংস্কৃতি এবং বিশ্বাস অনুযায়ী, যখন পাঁচটি বাদুড় একসাথে থাকে তখন তারা পাঁচটি ভালো জিনিসগুলির প্রতীক, যেমন স্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু, প্রেম, সম্পদ এবং সদ্গুণ।

4. ডলফিন-রোম

ডলফিনকে অনেক জায়গায় শুভ বলে মনে করা হয়। রোম ছাড়াও গ্রীস, মিশর ইত্যাদি জায়গায় সৌভাগ্যের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত। প্রাচীনকালে ডলফিনকে নিরাপত্তা চিহ্ন হিসাবে দেখা হতো। যখন নাবিকদের সমুদ্রের মধ্যে অনেক মাস কাটাতে হতো তখন বিশ্বাস করা হত যে ডলফিন যদি দেখা যায় তাহলে স্হলভাগ সামনেই রয়েছে।

5. হাতি – ভারত

রাজকীয় বাহন হাতি ভারতে শুভ বলে বিবেচনা করা হয়। এটি শক্তি, স্থিতিশীলতা এবং ভাগ্যের প্রতীক। হাতির সম্পর্ক গণেশের সাথে রয়েছে ।যেমন আপনারা জানেন গণেশের মাথা হাতি হাতিকে সমৃদ্ধি এবং ভাগ্য প্রতীক বলে মনে করা হয়।



6. ফিগা চার্ম – ব্রাজিল

ফিগা অশুভ শক্তিকে ঘর থেকে দূরে রাখে এবং সৌভাগ্য আনে। ব্রাজিল এবং পেরুর প্রায় বেশিরভাগ লোক এটা পড়েন। বিশ্বাস করা হয় যে এটা পড়লে আপনার সৌভাগ্য সবসময় সাথে থাকবে এবং অশুভ শক্তি দূরে থাকবে। কিন্তু মনে রাখবেন যে হারিয়ে না যায়।

7. হামসা – ইসরায়েল এবং আরব দেশ

হাতের আকারের এই আইকনের ব্যবহার ঘর এবং অফিস সাঁজানোর জন্য ব্যবহার করা হয়। অশুভ শক্তিকে দূরে রাখে। এই চিহ্ন মেসোপটেমিয়ায় প্রাচীন সভ্যতাগুলির সাথে সম্পর্কিত বলে মনে করা হয়।

8. দৃষ্টি- তুরস্ক

হামসার মতো দৃষ্টি আপনাকে অশুভ শক্তি থেকে দূরে রাখে। চোখের আকৃতির এই চিহ্ন ভারত ও পাকিস্তানের রাস্তায় বিক্রি হয়। নীল, সাদা, হালকা নীল এবং কালো রঙ দিয়ে হস্তনির্মিত। সাধারণত ঘরের দরজায় ঝোলানো হয় আপনি ব্রেসলেট বা নেকলেসের মতো পরতে পারেন।

9. টুমি-পেরু

পেরুতে এই বিশেষ চিহ্নকে টুমি বলা হয়। টুমি হলো একধরনের ছুরি যেটা তামা,সোনা, রুপা এবং ব্রোঞ্জের তৈরি।

10. পিগ (শুয়োর) – জার্মানি

মধ্যযুগে শুয়োর পালন করা ছিল ধনীর প্রতীক এবং জার্মানির জনগণ বিশ্বাস করতেন যে এটি বাড়িতে সমৃদ্ধি নিয়ে আসে।


Advertisement


  • Advertisement