Advertisement

চ্যাটে সবসময় ব্যবহার হয় ইমোজি এবং স্মাইলি, এদের মধ্যে পার্থক্য কি জানেন ?

author image
4:25 pm 7 Aug, 2017

Advertisement

স্মার্টফোনের সাহায্যে বর্তমান যুগে একে অপরের সাথে জুড়ে থাকা খুব সহজ হয়েছে। এখন ফোনের ব্যবহার শুধুমাত্র কথা বলার জন্য ব্যবহার করা হয় না। এমন অনেক মেসেজিং অ্যাপ আছে যার সাহায্যে অাপনি আপনার বন্ধুদের সাথে 24 ঘন্টা যোগাযোগ রাখতে পারেন। আজকের তরুণ সমাজ চ্যাটের সময় শব্দের বদলে ইমোজি এবং স্মাইলির ব্যবহার করে।

অনেক ভ্রান্ত ধারনা যে এই দুটি জিনিস একই। কিন্তু জেনে নিন ইমোজি, স্মাইলি এবং ইমোটিকোন এই তিনটি ভিন্ন ভিন্ন জিনিস। যখন মানুষের কাছে মনোভাব প্রকাশ করার জন্য শব্দ থাকে না তখন তারা ইমোজি বা স্মাইলির ব্যবহার করেন। এই দুটির ব্যবহার স্মার্টফোনের আসার পর শুরু হয়েছে। কিন্তু এমন একটা সময়েও ছিল যখন মানুষ বার্তা পাঠাতো এখানে কিপ্যাডের মধ্যে উপস্হিত বর্ণমালা এবং যতিচিহ্নের মাধ্যমে ইমোটিকোন তৈরি করা হতো।

কীপ্যাডের উপর উপস্হিত বর্ণমালা এবং যতিচিহ্নের মাধ্যমে ইমোটিকোন তৈরি করা হতো।

স্মাইলি


Advertisement

বিশ্বের প্রথম স্মাইলি আমেরিকান গ্রাফিক শিল্পী হার্ভে রস বল তৈরি করেছিলেন। এখানে তিনি একটি হাসির মুখ ফুটিয়ে তুলেছিলেন। তিনি একটি হলুদ রঙের গোলের মধ্যে দুটি কালো বিন্দুর সাহায্যে চোখ এবং হাসির মুখ তৈরি করেছিলেন। তবে স্মাইলি জনপ্রিয় হয়েছিল 1962 সালে। স্মার্টফোন আসার পর বিভিন্ন গরনের স্মাইলি আসে যেখানে হাসির বদলে রয়েছে কান্না, রাগ এবং বিভিন্ন আবেগ প্রকাশ করার স্মাইলি।

ইমোজি

ইমোজির ব্যবহার তখন করা হয় যখন মানুষের কাছে কিছু বলার জন্য কোনও শব্দ থাকে না। ইমোজি হলো কোনও ধরনেরে আবেগের মানসিক নিপীড়ন। এটায় মানুষের মুখ থেকে শুরু করে পশু এবং ফলের চিত্র রয়েছে।

Advertisement


  • Advertisement