Advertisement

জানুন কেন চিনে বেকার পড়ে থাকা সৌর প্যানেল পরিবেশের জন্য একটি বড় সমস্যা হতে চলেছে !

author image
4:14 pm 31 Jul, 2017

Advertisement

বিশ্বব্যাপী শক্তি উত্পাদনের জন্য তেল ও কয়লার ওপর নির্ভরতা হ্রাস করার জন্য নানারকম প্রয়োগ চলছে। সমগ্র বিশ্বে সৌরশক্তি থেকে শুরু করে বায়ু শক্তির ব্যবহারের ওপর কাজ চলছে।

চিনের প্যান্ডার আকারে তৈরি করা এই সৌর প্যানেল বিশ্বব্যাপী বিখ্যাত হয়েছে।

কিন্তু এখন এই সৌর প্যানেল চিনের পরিবেশের জন্য বড় সমস্যা হতে চলেছে। সমস্যাটি তৈরি হয়েছে পুরানো পড়ে থাকা সৌর প্যানেল থেকে। একটি সৌর প্যানেলের গড় বয়স প্রায় 20 থেকে 25 পর্যন্ত হয়। কিন্তু সমস্যা হলো এই পুরানো সৌর প্যানেলের কি হবে সেটা নিয়ে।

সাইথ চায়না মর্নিঙ্গের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী চিনের নবায়নযোগ্য শক্তি সোসাইটি সাধারণ সম্পাদক লু ফাং বলেছেন, বছর 2034 পর্যন্ত 70 গিগাবাইট উত্পন্ন করা এই সৌর প্যানেলকে অবসর দেওয়া হবে। 2050 পর্যন্ত প্রায় 2 কোটি টনের থেকে অধিক সোলার প্যানেল বেকার হয়ে যাবে। এই বেকার সৌর প্যানেলের ওজন আইফিল টাওয়ারের থেকেও 2 হাজার গুণ বেশি।

সৌরবিদ্যুতের ক্ষেত্রে চিন প্রধান। এখানে রয়েছে বিশ্বের সবথেকে বড় সৌর প্যানেল। যেখানে প্রায় 80 গিগাবাইট বিদ্যুত্ উত্পন্ন হয়।

চিনের জিয়াংসু প্রদেশের নর্ব্যবহারযোগ্য কোম্পানী ফ্যাঙ্গরুন মেটিয়াল অযোগ্য হয়ে যাওয়া সৌর প্যানেলের পুনর্ব্যবহার করে। মহাব্যবস্থাপক টিয়ান মিন চিনের সৌর শক্তি উত্পাদনের তুলনা টাইম বোমের সাথে করেছে।


Advertisement

মিন বলেছেন :

” এটি একটি টাইম বোম। প্রায় দুই থেকে তিন দশক পরে এটা সম্পূর্ণ শক্তির সাথে বিস্ফোরিত হবে এবং পরিবেশকে ধ্বংস করে দেবে। বর্জ্যের পরিমাণ এতটাই হবে যে পুনর্ব্যবহৃত করা কঠিন হয়ে পড়বে। “

সোলার প্যানেল কাচ, তামা ও অ্যালুমিনিয়ামের মতো ধাতব দিয়ে তৈরি। তার সাথে বিশেষ স্ফটিক সিলিকন ব্যবহারও করা হয়েছে।

চিনের অধিকাংশ সৌর প্যানেল অনুরূপ হয়, যা সস্তা হয়। দেশের গ্রামাঞ্চলে এই প্যানেলের মাধ্যমে বিদ্যুত্ উত্পাদন করা হয়।

ইউরোপের কিছু কোম্পানী এই প্রযুক্তিকে উন্নত করেছে। যেখানে সৌর প্যানেলের 90 শতাংশ পর্যন্ত পুনর্ব্যবহৃত করা যেতে পারে। তবে এটার খরচ বেশি এবং চিন সৌর প্যানেলের ওপর এত টাকা খরচ করতে পারবে না।

 

Advertisement


  • Advertisement