কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হুমকি, মেয়েরা টুহুইলার চালালে তাদেরকে পুড়িয়ে মারা হবে

author image
7:18 pm 1 Aug, 2016


ক্রমশ অশান্তি ছড়িয়ে পরছে কাশ্মীর উপত্যকায়। হিজবুল মুজাহিদিন ও লস্কর-ই তৈবার পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন জায়গায় পোস্টার মারা হয়েছে। এছাড়া আরও কিছু সংগঠন আন্দোলনের নামে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে।

এরাই নিরাপত্তা রক্ষীদের ওপর পাথর ছোরে বলে দাবি করে শ্রীনগরের প্রাণকেন্দ্র লালচকে দেওয়ালে দেওয়ালে পোস্টার মেরে মেয়েদের অনুরোধ করা হয়েছে তারা যেন কোনওরকম স্কুটি বা কোনও রকম টুহুইলার না চালায়। চালাতে দেখলে আরোহীকো পুড়িয়ে মারা হবে।

ওই এলাকাতে নিরাপত্তা রক্ষীদের ওপর হামলা বেশি হয়। পোস্টারে মানুষকে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার এবং মেয়েদেরকে বাড়ি থেকে না বেরোনর কথা বলা হয়েছে। লস্কর ই তৈবা হুমকি দিয়েছে, যদি কাশ্মীরীরা এই ধর্মঘট না মানার চেষ্টা করে,তাহলে তাদের কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে।

পাথর ছোঁড়া সংগঠনটি আবার কয়েকটি দোকান ও ব্যাঙ্কের নাম করে তাদের এই মুহূর্তে কাজকর্ম বন্ধ করতে বলেছে। কথা না শুনলে চরম শাস্তির হুমকি দিয়েছে তারা। বিচ্ছিন্নতাবাদ ও জেহাদের সমর্থনে গান গাওয়া ও প্রার্থনা করার জন্য মসজিদগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই পোস্টারগুলির পিছনে কারা রয়েছে তা জানার জন্য পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। তারা মানুষকে আশস্ত করে বলেছেন, এইসব পোস্টারে ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই, সাধারণের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। মেয়েদের স্বাভাবিকভাবে টু হুইলার চালানোরও অনুরোধ করেছে তারা।


ক্রমশ অশান্তি ছড়িয়ে পরছে কাশ্মীর উপত্যকায়। হিজবুল মুজাহিদিন ও লস্কর-ই তৈবার পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন জায়গায় পোস্টার মারা হয়েছে। এছাড়া আরও কিছু সংগঠন আন্দোলনের নামে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে।

এরাই নিরাপত্তা রক্ষীদের ওপর পাথর ছোরে বলে দাবি করে শ্রীনগরের প্রাণকেন্দ্র লালচকে দেওয়ালে দেওয়ালে পোস্টার মেরে মেয়েদের অনুরোধ করা হয়েছে তারা যেন কোনওরকম স্কুটি বা কোনও রকম টুহুইলার না চালায়। চালাতে দেখলে আরোহীকো পুড়িয়ে মারা হবে।

ওই এলাকাতে নিরাপত্তা রক্ষীদের ওপর হামলা বেশি হয়। পোস্টারে মানুষকে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার এবং মেয়েদেরকে বাড়ি থেকে না বেরোনর কথা বলা হয়েছে। লস্কর ই তৈবা হুমকি দিয়েছে, যদি কাশ্মীরীরা এই ধর্মঘট না মানার চেষ্টা করে,তাহলে তাদের কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে।

পাথর ছোঁড়া সংগঠনটি আবার কয়েকটি দোকান ও ব্যাঙ্কের নাম করে তাদের এই মুহূর্তে কাজকর্ম বন্ধ করতে বলেছে। কথা না শুনলে চরম শাস্তির হুমকি দিয়েছে তারা। বিচ্ছিন্নতাবাদ ও জেহাদের সমর্থনে গান গাওয়া ও প্রার্থনা করার জন্য মসজিদগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই পোস্টারগুলির পিছনে কারা রয়েছে তা জানার জন্য পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। তারা মানুষকে আশস্ত করে বলেছেন, এইসব পোস্টারে ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই, সাধারণের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। মেয়েদের স্বাভাবিকভাবে টু হুইলার চালানোরও অনুরোধ করেছে তারা।

Popular on the Web

Discussions



  • Viral Stories

TY News