আজ মহালয়ার পুণ্যতিথিতে তর্পণের ভিড় গঙ্গার ঘাটে ঘাটে

আজ মহালয়া পিতৃপক্ষের অবসান। পিতৃপক্ষে পুত্র কর্তৃক শ্রাদ্ধানুষ্ঠান হিন্দুধর্মে অবশ্য করণীয় একটি অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানের ফলেই মৃতের আত্মা স্বর্গে প্রবেশাধিকার পান। মহালয়া অনুষ্ঠিত হয় প্রত্যেক বছর। শনিবার থেকে শুরু দেবীপক্ষের সূচনা।

আজকের দিনটি শুরু হয় বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কন্ঠে। তারপরই গঙ্গার ঘাটে শুরু হয়ে যায় পিতৃতর্পণ।

পিতৃপক্ষ ও দেবীপক্ষ কি?

বছরের 12 মাসে 24 টি পক্ষ। তার মধ্যে 2 টি পক্ষ বিশেষ তাত্পর্যপূর্ণ। প্রথমটি পিতৃপক্ষ দ্বিতীয়টি দেবীপক্ষ।

হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী, জীবিত ব্যক্তির পূর্বের তিন পুরুষ পিতৃলোকে বাস করেন। এই লোক স্বর্গ ও মর্ত্যের মাঝামাঝি স্থানে অবস্থিত। পিতৃলোকের শাসক মৃত্যুদেবতা যম। তিনিই সদ্যমৃত ব্যক্তির আত্মাকে মর্ত্য থেকে পিতৃলোকে নিয়ে যান। পরবর্তী প্রজন্মের একজনের মৃত্যু হলে পূর্ববর্তী প্রজন্মের একজন পিতৃলোক ছেড়ে স্বর্গে গমন করেন এবং পরমাত্মায় (ঈশ্বর) লীন হন এবং এই প্রক্রিয়ায় তিনি শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের ঊর্ধ্বে উঠে যান। এই কারণে, কেবলমাত্র জীবিত ব্যক্তির পূর্ববর্তী তিন প্রজন্মেরই শ্রাদ্ধানুষ্ঠান হয়ে থাকে; এবং এই শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে যম একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই দিন শ্রাদ্ধ করলে তা বিশেষ ফলপ্রসূ হয়।

অমবস্যায় পিতৃপূজা সেরে পরের পক্ষ দেবীপূজায় প্রবৃত্ত হতে হয়। দেবীপূজার পক্ষকে বলা হয় দেবীপক্ষ। মহালয়ার পর থেকে দেবী বন্দনা শুরু হয়ে যায় আমাদের এখানে ষষ্ঠী তিথি থেকে দেবী বন্দনা শুরু হয়ে যায়।

আজকের এই দিনে গঙ্গার ঘাটে ঘাটে লক্ষ্যণীয় ভিড় দেখা যায়। বাবুঘাট, দক্ষিণেশ্বর ঘাট, বাগবাজার ঘাট সর্বত্র লোকারণ্য। ভিড় সামলাতে রয়েছে কলকাতা পুলিশ এবং রিভার ট্রাফিক পুলিশ। আজ এই মহালয়া দিয়ে শুরু হলো বাঙালির সব থেকে বড় উত্সব।

Facebook Discussions