জিন্স তো পড়েন, কিন্তু জিন্সের উদ্ভব কিভাবে হলো সেটা জানেন!

12:22 pm 30 Nov, 2016


বর্তমানে মানুষ বহু ফ্যাশানবেল জামাকাপড় পড়েন। যার মধ্যে জিন্স হচ্ছে অত্যন্ত জনপ্রিয়। কিন্তু আপনি কি জানেন যে জিন্সের চলন প্রথম কবে শুরু হয়েছিল। প্রথমে খনির শ্রমিকরা জিন্স পড়তে শুরু করেছিলেন। জিন্সের কাপড় মোটা হওয়ার কারণে তাদের কাজ করতে সুবিধা হতো।

বিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে এটা স্টাইল সিম্বল হয়ে গিয়েছিল।

জিন্সের উদ্ভব প্রথম কোথায় হয়েছিল তার কোনও তাত্পর্যপূর্ণ উত্তর এখনও পাওয়া যায়নি। তবে নথিগত দিক থেকে বলা হয় যে ষষ্ঠদশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে জিন্সের চলন শুরু হয়ে গিয়েছিল।

নথি অনুযায়ী, জিন্সের কাপড়ের প্রথম তৈরি করা হয়েছিল 1600 সালের গোড়ার দিকে ইতালির তুরিন শহরের কাছে চীয়রীতে। এটা জেনোয়ার হার্বারের মাধ্যামে বিক্রি করা হতো। জেনোয়া হলো একটি স্বাধীন প্রজাতন্ত্রের রাজধানী, যার নৌবাহিনী খুব শক্তিশালী ছিল। অনেকে মনে করেন জিন্সের নামকরণ করা হয়েছে জেনোয়ার নামে।

অষ্টাদশ শতাব্দীর দিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছিল জিন্স। সেই সময় ফ্রান্স ও ভারতে এই ধরনের কাপড় স্বাধীনভাবে তৈরি করা হতো। ভারতে এই ধরনের কাপড়কে দুঙ্গারী বলা হতো। এটি সাধারণত মুম্বাই বসবাসকারী নাবিকরা পরতেন। 1850 সালে জিন্স একটি জনপ্রিয় পোশাকে পরিণত হয়। সেই সময় জার্মানীর লেভি স্ট্রস ব্র্যান্ড জিন্স বিক্রি করতে শুরু করে।

স্ট্রাউস আমেরিকায় এই নতুন পোশাকের একটি নতুন পেটেন্ট তৈরি করে এবং তাদের ব্যবসাও ক্রমে উন্নতি করতে শুরু করে।

তত্কালীন সময় জিন্সকে পায়জামা বলা হতো। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আমেরিকার শ্রমিকরা এই ধরনের জামাকাপড় পড়তেন। পরবর্তীকালে আমেরিকার সৈন্যরা স্টাইলের জন্য জিন্স পড়তে শুরু করেন এবং এটি অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

1960 সালের পর এই ধরনের কাপড়ের নাম রাখা হয় জিন্স। যা বলতেও “কুল” লাগতো।

জিন্সের সমগ্র জীবনের জন্য প্রয়োজন পড়ে 34,00 লিটার জল। তবে এটা অন্য ব্যাপার যে সাম্প্রতিক সময়ে জিন্স খুব কম ঢোয়া উচিত। বেশি ঢুলে এটা নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী,বিশ্বের মধ্যে অর্ধেকের বেশি জিন্স তৈরি হয় এশিয়া।

সাধারণত মানুষ ‘রাফ জিন্স’ বেশি পছন্দ করেন। যা দেখতে সুন্দর হয়। এই ধরনের জিন্স তৈরি করতে লাগে স্যান্ডপেপার। তাই জন্য এই ধরনের জিন্সের নির্মাণকারীরা সিলিকোসিস নামক রোগে আক্রান্ত হন।

1970 সালে এটি একটি ফ্যাশন হিসেবে গৃহীত হয়েছিল। সেই সময় থেকে আজ পর্যন্ত সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে জিন্স অত্যন্ত জনপ্রিয়। ধনী, দরিদ্র, শিশু, বৃদ্ধ অথবা তরুণ সকলের মধ্যেই জিন্সের জন্য উন্মত্ততা বেড়েই চলেছে।

Discussions